আল কোরআনের নির্বাচিত দোয়া সমুহ। (২য় পর্ব)


১৬। শয়তানী কুমন্ত্রণা থেকে নিরাপদ থাকার দোয়া। যা আল্লাহ তায়ালা নিজে শিক্ষা দিয়েছেনঃ
رَّبِّ أَعُوذُ بِكَ مِنۡ هَمَزَٲتِ ٱلشَّيَـٰطِينِ
وَأَعُوذُ بِكَ رَبِّ أَن يَحۡضُرُونِ
আরবি উচ্চারণঃ অক্বর রব্বি আ‘ঊযুবিকা মিন্ হামাযা -তিশ্ শাইয়া-ত্বীন্। অ আ‘ঊ যুবিকা রব্বি আইঁ ইয়াহ্দ্বুরূন্।
বাংলা অনুবাদঃ আর বল, ‘হে আমার রব, আমি শয়তানের প্ররোচনা থেকে আপনার কাছে পানাহ চাই, আর হে আমার রব, আমার কাছে তাদের উপস্থিতি হতে আপনার কাছে পানাহ চাই।’


১৭। ক্ষমা ও রহমত চাওয়ার দোয়া। আল্লাহ তায়ালা এ দোয়া পাঠকারীদের জন্য ফজিলত বর্ণনা করেছেন।
 رَبَّنَآ ءَامَنَّا فَٱغۡفِرۡ لَنَا وَٱرۡحَمۡنَا وَأَنتَ خَيۡرُ ٱلرَّٲحِمِينَ ١٠٩.٢٣
আরবি উচ্চারণঃ ইন্নাহূ কা-না ফারীকুম্ মিন্ ই’বা-দী ইয়াকুলূনা রব্বানা য় আ-মান্না- ফার্গ্ফিলানা-র্অহাম্না-অআন্তা খইর্রু র-হিমীন্।
বাংলা অনুবাঃ  আমার বান্দাদের একদল ছিল যারা বলত, ‘হে আমাদের রব, আমরা ঈমান এনেছি, অতএব আমাদেরকে ক্ষমা ও দয়া করুন,আর আপনি সর্বশ্রেষ্ঠ দয়ালু।’

১৮। জাহান্নামের আজাব থেকে হেফাজতের দোয়াঃ
رَبَّنَا اصْرِفْ عَنَّا عَذَابَ جَهَنَّمَ إِنَّ عَذَابَهَا كَانَ غَرَامًا
উচ্চারণঃ রব্বানাসরিফ আন্না আজাবা জাহান্নাম, ইন্না আজাবা জাহান্নামা গরমা।
অনুবাদঃ হে আমার পালনকর্তা, আমাদের কাছথেকে জাহান্নামের শাস্তি হটিয়ে দাও। নিশ্চয় এর শাস্তি নিশ্চিত বিনাশ;

১৯। নেক আমলের তৌফিক এবং অন্তরে প্রশান্তির দোয়াঃ
رَبَّنَا هَبْ لَنَا مِنْ أَزْوَاجِنَا وَذُرِّيَّاتِنَا قُرَّةَ أَعْيُنٍ وَاجْعَلْنَا لِلْمُتَّقِينَ إِمَامًا
উচ্চারণঃ রব্বানা হাবলানা মিন আযওয়াজিনা ওয়াযুর রিয়্যাতিনা ক্বুররতা আ’ইনিও ওয়াজয়াল লানা লিল মুত্তাক্বিনা ইমামা।
অনুবাদঃ হে আমাদের পালনকর্তা, আমাদের স্ত্রীদের পক্ষ থেকে এবং আমাদের সন্তানের পক্ষ থেকে আমাদের জন্যে চোখের শীতলতা দান কর এবং আমাদেরকে মুত্তাকীদের জন্যে আদর্শস্বরূপ কর।

২০। হজরত সোলাইমান আঃ নেক আমলের তৌফিক ও পরিনাম ভালোর জন্য দোয়া করেছিলেন।
 رَبِّ أَوۡزِعۡنِىٓ أَنۡ أَشۡكُرَ نِعۡمَتَكَ ٱلَّتِىٓ أَنۡعَمۡتَ عَلَىَّ وَعَلَىٰ وَٲلِدَىَّ وَأَنۡ أَعۡمَلَ صَـٰلِحً۬ا تَرۡضَٮٰهُ وَأَدۡخِلۡنِى بِرَحۡمَتِكَ فِى عِبَادِكَ ٱلصَّـٰلِحِينَ ١٩
 আরবি উচ্চারঃ রব্বি আওযি’নী য় আন্ আশ্কুরা নি’মাতাকাল্লা তীয় আন্‘আম্তা ‘আলাইয়্যা অ‘আলা- ওয়া-লিদাইয়্যা অআন্ আ’মালা ছোয়া-লিহান্ র্তাদ্বোয়া-হু অ আদ্খিল্নী বিরহমাতিকা ফী ‘ইবা-দিকাছ্ ছোয়া-লিহীন্।
 বাংলা অনুবাদঃ ‘হে আমার রব, তুমি আমার প্রতি ও আমার পিতা-মাতার প্রতি যে অনুগ্রহ করেছ তার জন্য আমাকে তোমার শুকরিয়া আদায় করার তাওফীক দাও। আর আমি যাতে এমন সৎকাজ করতে পারি যা তুমি পছন্দ কর। আর তোমার অনুগ্রহে তুমি আমাকে তোমার সৎকর্মপরায়ণ বান্দাদের অন্তর্ভুক্ত কর’।

২১। রিজিক তলব করার দোয়া। হজরত মুসা আঃ তাদের জন্তুদেরকে পানি পান করালেন। অতঃপর তিনি ছায়ার দিকে সরে গেলেন এবং বলেনঃ
رَبِّ إِنِّي لِمَا أَنزَلْتَ إِلَيَّ مِنْ خَيْرٍ فَقِيرٌ
উচ্চারণঃ রব্বি ইন্নি লিমা আনজালতা ইন্নি মিন খইরিং ফাক্বীর।
অনুবাদঃ  হে আমার পালনকর্তা, তুমি আমার প্রতি যে অনুগ্রহ নাযিল করবে, আমি তার মুখাপেক্ষী।

২২। হজরত লুত আঃ এর দোয়া। যা তিনি ফাসাদ সৃষ্টিকারীর উপর বিজয়ী লাভ করার জন্যে পড়েছিলেন।
رَبِّ انصُرْنِي عَلَى الْقَوْمِ الْمُفْسِدِينَ
উচ্চারণঃ রব্বিং সুরনি আলাল ক্বওমিল মুফসিদীন।
অর্থঃ হে আমার পালনকর্তা, দুস্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে আমাকে সাহায্য কর।

২৩। মাগফিরাত ও শেষফল ভালো ও মঙ্গলজনক হওয়ার দোয়া। ফেরেস্তারা এই দোয়া মাগফিরাতের এবং শেষফল ভালো ও জান্নাত হাসিল করা মুসলমানদের জন্য আল্লাহর কাছে চায়। ইমানদার বান্দার হকের মধ্যে আল্লাহ তায়ালার এটাই সবচেয়ে বড় রহমত ও নিয়ামত।
رَبَّنَا وَسِعْتَ كُلَّ شَيْءٍ رَحْمَةً وَعِلْمًا فَاغْفِرْ لِلَّذِينَ تَابُوا وَاتَّبَعُوا سَبِيلَكَ وَقِهِمْ عَذَابَ الْجَحِيمِ رَبَّنَا وَأَدْخِلْهُمْ جَنَّاتِ عَدْنٍ الَّتِي وَعَدْتَهُمْ وَمَنْ صَلَحَ مِنْ آَبَائِهِمْ وَأَزْوَاجِهِمْ وَذُرِّيَّاتِهِمْ إِنَّكَ أَنْتَ الْعَزِيزُ الْحَكِيمُ . وَقِهِمُ السَّيِّئَاتِ وَمَنْ تَقِ السَّيِّئَاتِ يَوْمَئِذٍ فَقَدْ رَحِمْتَهُ وَذَلِكَ هُوَ الْفَوْزُ الْعَظِيمُ
উচ্চারণঃ রব্বানা ওয়াসি’তা কুল্লা শাই’ইন রহমাতা ওয়া ইলমাং ফাগফির লিল্লাজিনা তাবু ওয়াত তাবায়ু সাবিলাকা ওয়াকিহিম আজাবাল জাহিম। রব্বানা ওয়া আদখিলহুম জান্নাতি আদনি নিল্লাতি ওয়াত তাহুম ওয়ামান সলাহ মিন আবা-ইহিম ওয়া আজওয়াজিহিন ওয়া জুররিয়্যাতিহিম ইন্নাকা আনতাল আজিজুল হাকিম। ওয়াকিহিমুস সায়্যিয়াত ওয়ামান তাকিস সায়্যিয়াতি ইউমাইজিন ফাক্বদ রহিমতাহ ওয়াজালিক হুয়াল ফাওজুল আজিম।
অর্থঃ ‘হে আমাদের রব, আপনি রহমত ও জ্ঞান দ্বারা সব কিছুকে পরিব্যাপ্ত করে রয়েছেন। অতএব যারা তাওবা করে এবং আপনার পথ অনুসরণ করে আপনি তাদেরকে ক্ষমা করে দিন। আর জাহান্নামের আজাব থেকে আপনি তাদেরকে রক্ষা করুন’। ‘হে আমাদের রব, আর আপনি তাদেরকে স্থায়ী জান্নাতে প্রবেশ করান, যার ওয়াদা আপনি তাদের দিয়েছেন। আর তাদের পিতা-মাতা, পতি-পত্নি ও সন্তান-সন্ততিদের মধ্যে যারা সৎকর্ম সম্পাদন করেছে তাদেরকেও। নিশ্চয় আপনি মহাপরাক্রমশালী, মহাপ্রজ্ঞাময়।’ আর আপনি তাদের অপরাধের আজাব হতে রক্ষা করুন এবং সেদিন আপনি যাকে অপরাধের আজাব থেকে রক্ষা করবেন, অবশ্যই তাকে অনুগ্রহ করবেন। আর এটিই মহাসাফল্য’-

২৪। নেক আমল ও নেক সন্তান ও ধৈর্যের দোয়া। বয়স্ক ব্যক্তিদের উচিত এই দোয়া পড়া।
وَأَصْلِحْ لِي فِي ذُرِّيَّتِي إِنِّي تُبْتُ إِلَيْكَ وَإِنِّي مِنَ الْمُسْلِمِينَ
আরবি উচ্চারণঃ  অআছ্লিহ্ লী ফী র্যুরিয়্যাতী; ইন্নী তুব্তু ইলাইকা অইন্নী মিনাল্ মুস্লিমীন্।
বাংলা অনুবাদঃ  আর আমার জন্য তুমি আমার বংশধরদের মধ্যে সংশোধন করে দাও। নিশ্চয় আমি তোমার কাছে তাওবা করলাম এবং নিশ্চয় আমি মুসলিমদের অন্তর্ভুক্ত’।

২৫। ইসলামী ভাতৃত্ত্ব  তৌফিক এবং হিংসা বিদ্বেষ প্রতিরোধের দোয়া। যা আল্লাহ এই উম্মত কে শিখিয়েছেন।
 رَبَّنَا اغْفِرْ لَنَا وَلِإِخْوَانِنَا الَّذِينَ سَبَقُونَا بِالْإِيمَانِ وَلَا تَجْعَلْ فِي قُلُوبِنَا غِلًّا لِلَّذِينَ آمَنُوا رَبَّنَا إِنَّكَ رَءُوفٌ رَحِيمٌ
আরবি উচ্চারণঃ রব্বানাগ্ ফিরলানা-অলিইখ্ওয়া-নিনাল লাযীনা সাবাক্ব ক্রনা বিল্ ঈমা-নি অলা- তাজ্ব ‘আল্ ফী কুলূবিনা-গিল্লাল্লিল্লাযীনা আ-মানূ রব্বানা য় ইন্নাকা রায়ূফুর রহীম্
বাংলা অনুবাদঃ ‘হে আমাদের রব, আমাদেরকে ও আমাদের ভাই যারা ঈমান নিয়ে আমাদের পূর্বে অতিক্রান্ত হয়েছে তাদেরকে ক্ষমা করুন; এবং যারা ঈমান এনেছিল তাদের জন্য আমাদের অন্তরে কোন বিদ্বেষ রাখবেন না; হে আমাদের রব, নিশ্চয় আপনি দয়াবান, পরম দয়ালু।

২৬। হজরত ইবরাহিম আঃ এবং ঐ সময়কার মুসলমানদের দোয়া।
رَبَّنَا عَلَيْكَ تَوَكَّلْنَا وَإِلَيْكَ أَنَبْنَا وَإِلَيْكَ الْمَصِيرُ. رَبَّنَا لَا تَجْعَلْنَا فِتْنَةً لِّلَّذِيْنَ كَفَرُوْا وَاغْفِرْ لَنَا رَبَّنَا اِنَّكَ اَنْتَ العَزِِيْزُ الْحَكِيْمُ.
আরবি উচ্চারণঃ রব্বানা আলাইকা তাওয়াক্কালনা ওয়াইলাইকা আনাব্না- ওয়াইলাইকাল মাসীর। রব্বা না লা তাজয়ালনা ফিতনাতাল্লিল্লাজিনা কাফারূ ওয়াগফিরলানা রব্বানা, ইন্নাকা আনতাল আজিজুল হাকিম।
বাংলা অনুবাদঃ  হে আমাদের প্রতিপালক, আমরা আপনার ওপরই ভরসা করি, আপনারই অভিমুখী হই আর প্রত্যাবর্তন তো আপনারই কাছে। হে আমাদের রব, আপনি আমাদেরকে কাফিরদেও উৎপীড়নের পাত্র বানাবেন না। হে আমাদের রব, আপনি আমাদের ক্ষমা করে দিন। নিশ্চয় আপনি মহাপরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়।

২৭। যে দোয়া পাঠকারীকে কিয়ামতের দিন নূর দান করা হবে।
 رَبَّنَا أَتْمِمْ لَنَا نُورَنَا وَاغْفِرْ لَنَا إِنَّكَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ
আরবি উচ্চারণঃ রব্বানা আতমিম লানা- নূরানা- ওয়াগফির লানা- ইন্নাকা ‘আলা-কুল্লি শাইয়িন্ ক্বর্দীর।
বাংলা অনুবাদঃ  ‘হে আমাদের রব, আমাদের জন্য আমাদের আলো পূর্ণ করে দিন এবং আমাদেরকে ক্ষমা করুন; নিশ্চয় আপনি সর্ববিষয়ে সর্বক্ষমতাবান।’

২৮। নিজ ও সাধারণ মুসলমানদের জন্য নাজাত ও ক্ষমা এবং দুশমনের জন্য ধ্বংসের দোয়া, যা হজরত নূহ আঃ করেছিলেন।
 رَبِّ اغْفِرْ لِي وَلِوَالِدَيَّ وَلِمَنْ دَخَلَ بَيْتِيَ مُؤْمِنًا وَلِلْمُؤْمِنِينَ وَالْمُؤْمِنَاتِ وَلَا تَزِدِ الظَّالِمِينَ إِلَّا تَبَارًا
আরবি উচ্চারণঃ রব্বিগফিরলি ওয়ালিওয়া-লিদাইয়্যা অলিমান্ দাখলা বাইতিয়া মু”মিনাঁও অলিল্ মু”মিনীনা অল্ মু”মিনা-ত্; অলা-তাযিদিজ্ জোয়া-লিমীনা ইল্লা-তাবা-রা-।
বাংলা অনুবাদঃ ‘হে আমার রব! আমাকে, আমার পিতা-মাতাকে, যে আমার ঘরে ঈমানদার হয়ে প্রবেশ করবে তাকে এবং মুমিন নারী-পুরুষকে ক্ষমা করুন এবং ধ্বংস ছাড়া আপনি যালিমদের আর কিছুই বাড়িয়ে দেবেন না।’

২৯। ক্ষমা ও রহমত লাভের দোয়া।
 رَبِّ ٱغۡفِرۡ وَٱرۡحَمۡ وَأَنتَ خَيۡرُ ٱلرَّٲحِمِينَ ١١٨.٢٣
আরবি উচ্চারণঃ রব্বিগফির ওয়ারহাম ওয়া আনতা খইরুর রহিমিন।
বাংলা অনুবাদঃ  ‘হে আমাদের রব, আপনি ক্ষমা করুন, দয়া করুন এবং আপনিই সর্বশ্রেষ্ঠ দয়ালু।’